ঢাকা সোমবার, মে ২৫, ২০২০

করোনা : দূর্যোগ মোকাবেলায় ববি প্রশাসনের নানা উদ্যোগ


|| প্রকাশিত: 9:59 pm , April 5, 2020

শফিক মুন্সি: করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট সংকট মোকাবেলায় মানবিক সহায়তার অংশ হিসেবে বিভিন্ন কার্যক্রম হাতে নিয়েছে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় (ববি)। একদিনের বেতনের সমপরিমাণ টাকা প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেখানকার শিক্ষকবৃন্দ।

শনিবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে সেখানকার শিক্ষক সমিতি। করোনাকালীন দূর্যোগে কোনো শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়লে তাঁর চিকিৎসার ব্যাপারে সহযোগিতা করার ঘোষণা দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য। এছাড়া ‘কাজ আছে টাকা আছে – কাজ নাই টাকা নাই (ডেইলি বেসিস)’ কর্মসূচীর আওতায় কর্মরত কর্মচারীদের খাদ্য সামগ্রী সহায়তা দেবে সেখানকার কর্মকর্তা পরিষদ।

জানা গেছে, গত শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষক সমিতি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে একটি বিশেষ সভা আয়োজন করে৷ সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাদের একদিনের বেতনের সমপরিমাণ টাকা দেশের মানুষের কল্যাণে দান করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সেখানকার ডেইলি বেসিসে কর্মরত আছেন প্রায় অর্ধশত কর্মচারী। করোনা প্রদুর্ভাব রুখতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছে তারা। সামনে পবিত্র রমজান ও ঈদুল ফিতরের বন্ধেও তারা কোনো আয় করতে পারবে না। তাই কর্মকর্তা পরিষদ এদের পাশে দাঁড়াবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য প্রফেসর ড. মোঃ ছাদেকুল আরেফিন জানান, ‘করোনা প্রাদুর্ভাবে কোনো শিক্ষার্থী যদি অসুস্থতার সম্মুখীন হয় তবে তার পাশে দাঁড়াবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। অসুস্থ শিক্ষার্থীর পক্ষ থেকে তাঁর বিভাগীয় চেয়ারম্যানের মাধ্যমে প্রক্টরের সঙ্গে যোগাযোগ করলে যথাসাধ্য সহযোগিতা করা হবে’৷

সেখানকার শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. মোঃ খোরশেদ আলম বলেন, ‘কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাব রুখতে একপ্রকার লকডাউন করে রাখা হয়েছে সবকিছু। যার প্রভাব পড়েছে নিম্নআয়ের মানুষদের ওপর। সরকার এই জনগোষ্ঠীর সহায়তায় বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। সরকারের এই উদ্যোগের পাশে থাকার জন্যই আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে আমাদের ১ দিনের বেতন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি’।

বিশ্ববিদ্যালয়টির কর্মকর্তা পরিষদের সভাপতি মিজানুর রহমান জানিয়েছেন, ‘করোনা প্রাদুর্ভাব রুখতে প্রায় ১ মাস বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ। সামনে বিভিন্ন ছুটি আছে৷ এইসময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘কাজ আছে টাকা আছে – কাজ নাই টাকা নাই’ কর্মসূচীর আওতায় যেসকল চাকুরিজীবী আছেন তাদের আয় একপ্রকার বন্ধ। তারা যেন মারাত্মক বিপাকে না পড়েন তাই রমজান শুরুর আগেই তাদের জন্য জরুরী খাদ্য সহায়তার ব্যবস্থা করা হবে’।