ঢাকা শুক্রবার, মে ২৯, ২০২০

আম্পানে বাংলাদেশ-ভারতে ‘২২ জনের’ মৃত্যু


|| প্রকাশিত: 3:08 pm , May 21, 2020

ছবি: এএফপি

পিনিউজ২৪ ডেস্ক: বাংলাদেশ ও পশ্চিম ভারতের ওপর নিয়ে বয়ে যাওয়া সুপার সাইক্লোন আম্পানে অন্তত ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি। প্রলয়ংকরী এই ঘূর্ণিঝড় থেকে বাঁচতে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার শঙ্কা থাকা সত্ত্বেও আশ্রয়কেন্দ্রে গাদাগাদি করে অবস্থান নিয়েছে কয়েক লাখ মানুষ।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে এএফপি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে প্রায় ঘণ্টায় প্রায় ১৫০ কিলোমিটার বেগের সাইক্লোন আম্পানে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে লাখ লাখ বাড়িঘর। কতৃপক্ষ জানিয়েছে, তারা ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ শুরু করেছেন।

আম্পান বড় ধাক্কা হয়ে এসেছে পশ্চিমবঙ্গে। প্লাবিত হয়েছে কলকাতা শহরের রাস্তাঘাট। কিছু কিছু জায়গায় গাড়ির জানালা সমান পানি উঠতে দেখা গেছে। টেলিভিশনগুলোর ফুটেজে জলাবদ্ধতা দেখা গেছে কলকাতার বিমানবন্দরও।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলোতে খবর, আম্পানে পশ্চিম বঙ্গে অন্তত ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, “আম্পানের প্রভাব করোনাভাইরাসের চেয়েও ভয়াবহ।”

“হাজার মাটির ঘর মিশে গেছে। গাছপালা উপড়ে গেছে। রাস্তা-ঘাট ভেসে গেছে, ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।”

আম্পানে এখন পর্যন্ত ১০ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে বলে বাংলাদেশের সরকারি সূত্র মারফত জানা গেছে বলে জানিয়েছে এএফপি।

এর মধ্যে পাঁচ বছরের একটি শিশু ও ৭৫ বছর বয়সী এক বৃদ্ধের গাছ চাপায় মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। পানিতে ডুবে মৃত্যু হয়েছে সাইক্লোনের সময় দায়িত্ব পালন করা এক স্বেচ্ছাসেবীর।

সরকারি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আম্পানে ইউনেস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজের তালিকাভুক্ত সুন্দরবনের কেমন ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে এ ব্যাপারে প্রতিবেদনের অপেক্ষায় রয়েছেন তারা।

এ ব্যাপারে বন প্রধান মইন উদ্দিন খান এএফপিকে বলেন, “আমরা এখনো ক্ষয়ক্ষতির প্রকৃত চিত্রটা পাইনি। আমরা বিশেষ কিছু বন্য প্রাণী নিয়ে উদ্বিগ্ন। ঝরের সময় উঁচু জলোচ্ছ্বাসের কারণে এগুলো ভেসে যেতে পারে।”

প্রতি বছরেই বঙ্গোপসাগরে মৌসুমি সাইক্লোন ভয়ের কারণ হয়ে দাঁড়ালেও উপকূলীয় অঞ্চলে হাজার হাজার মানুষকে রক্ষায় গত কয়েক দশক ধরে ঢাল হিসেবে কাজ করে সুন্দরবন।

আম্পানের প্রভাবে বাংলাদেশের উপকূলীয় জেলাগুলোতে বাড়িঘর, রাস্তা-ঘাট, ফসলাদির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টদের বরাত দিয়ে জানিয়েছে এএফপি।

এই বিভাগের আরও খবর
সর্বশেষ