ঢাকা শনিবার, আগস্ট ৮, ২০২০

জন্মদিনে তারিনের সহকর্মীরা যা বলছেন


|| প্রকাশিত: 3:52 pm , July 26, 2020

পিনিউজ২৪ ডেস্ক: শিল্পশিল্পী হিসেবে আলোচনায় আসা, পরিণত চরিত্রে অভিনয় করেও তুমুল জনপ্রিয়— তেমন কয়েকজন তারকার অন্যতম তারিন জাহান। একাধারে অভিনেত্রী, গায়িকা, নৃত্যশিল্পী ও প্রযোজক। আজ তার জন্মদিন।

বিশেষ এই দিনের প্রথম প্রহর থেকে ভক্ত-অনুরাগীদের পাশাপাশি সহকর্মীদের শুভেচ্ছায় ভাসছেন এই অভিনেত্রী। তারিনের ফেইসবুক অ্যাকাউন্টে দেখা যায় বার্তার ছড়াছড়ি।

যেমন; রিচি সোলায়মান লেখেন, “শুভ জন্মদিন তারিন জাহান। তোমার জন্য অনেক ভালোবাসা। আল্লাহ তোমাকে সুস্বাস্থ্য, দীর্ঘ জীবন দিন ও সব স্বপ্ন পূরণ করুন।”

পুরোনো ছবি শেয়ার করে শানারেই দেবী শানু বলেন, “শুভ জন্মদিন তারিন আপু। পুরোনো ছবিটাই আবার দিলাম। কারণ এই ছবিটা আমার খুব পছন্দের আর স্মৃতিটাও খুব মায়াবী ছিল। সবসময় ভালো থেকো।”

এ ছাড়া সুবর্ণা মুস্তাফা, জিয়াউল ফারুক অপূর্ব, কাজী নওশাবা আহমেদ-সহ অনেকেই শুভেচ্ছা জানান নতুন কুঁড়ি প্রতিযোগিতার মাধ্যমে ফেইম পাওয়া তারিনকে।

অভিনেত্রী রুনা খান লেখেন, “পর্দায় তুমি অসাধারণ অভিনেত্রী (এতটাই অসাধারণ যে তোমার শত্রুরাও এটা স্বীকার করতে বাধ্য হয়) এবং অপরূপা সুন্দরী এক নারী… তবে আমার চোখে, তুমি অপুর্ব মুখশ্রীর অধিকারী শুধু নও… ভীষণ ভালোবাসাপূর্ণ মায়াবী মনের অধিকারী একজন।”

আশনা হাবিব ভাবনা বলেন, “আমি মনে করি বাংলাদেশে তারিন আপু সবচেয়ে সেরা একজন অভিনেত্রী। তারিন আপুকে নিয়ে আরও অনেক ভালো ভালো কাজ হওয়া উচিত, সিনেমা হওয়া উচিত। এবং সঠিক সম্মান করা উচিত। আমি তারিন আপুকে সবার থেকে এগিয়ে রাখি এই কারণে, কারণ সে একজন আপসহীন নারী। যে নিজেকে তৈরি করেছে সুনিপুণভাবে। নাচ শিখে, গান শিখে, ছোটবেলা থেকেই শিক্ষা নিয়ে একজন অসাধারণ অভিনেত্রী। তারিন আপু শুভ জন্মদিন। অনেক ভালোবাসি তোমাকে, তোমার শিল্পকে।”

তারিন ১৯৭৬ সালের ২৬ জুলাই নোয়াখালীতে জন্মগ্রহণ করেন, বেড়ে উঠেন ঢাকায়। ১৯৮৫ সালে জাতীয় সাংস্কৃতিক প্রতিভা অন্বেষণ নতুন কুঁড়িতে অভিনয়, নাচ ও গল্প বলাতে প্রথম হন। তখন থেকেই শিশুশিল্পী হিসেবে ছোটপর্দায় কাজ শুরু করেন। তিনি ওস্তাদ হাসান ইকরাম উল্লাহ্‌-এর কাছে শাস্ত্রীয় সংগীতে তালিম নেন। নাচেও তালিম নেন।

তারিন ‘সকাল সন্ধ্যা’ ধারাবাহিক নাটকে প্রথম অভিনয় করেন। এর পর ১৯৮৮ সালে ‘সংশপ্তক’ করেন। তিনি প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেন তৌকীর আহমেদের সঙ্গে ‘কাঁঠাল বুড়ি’ নাটকে। অন্য উল্লেখযোগ্য নাটক হলো এইসব দিনরাত্রি, ফুল বাগানের সাপ, কথা ছিল অন্যরকম, ইউ টার্ন, মায়া, হারানো আকাশ, রাজকন্যা, অগ্নিবলাকা, বছর কুড়ি পরে, রাজকন্যা, সবুজ ভেলভেট, কালান্তর, নাকফুল, ছায়াবিচিত্রা, কাগজের বাড়ি, বন চালতার গায়ে, স্বপ্নগুলো জোনাক পোকার মতো, জুয়াড়ি, সন্ধিক্ষণ, বৃষ্টি, শেষ নাটক, গ্র্যান্ড মাস্টার ইত্যাদি। গত কয়েক বছরে নাটকে কম দেখা যায় তারিনকে। তবে বিশেষ বিশেষ উপলক্ষে ঠিকই হাজির থাকেন। এবারের ঈদেও দু-একটি নাটকে দেখা যাবে তাকে।

নিয়মিত না হলেও গানে অল্প-বিস্তর পদচারণা আছে তারিন জাহানের। শোনা গেছে কয়েকটি অ্যালবামে।

অভিনয়ের স্বীকৃতি হিসেবে মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কারসহ বেশ কিছু সম্মাননা পেয়েছেন তারিন জাহান।